নমস্কার, আশা করি সবাই ভাল আছেন, আজকে আমি IP address সম্পর্কে Monipuri-IT.com এ শ্যামল দাদার একটি লেখা বাংলা অনুবাদ  করে  আপনাদের সামনে উপস্থাপন করতেছি। তাহলে শুরু করা যাক।

আজকের আলোচনার বিষয় হল IP address। IP address এর পূর্ন নাম হল Internet Protocal Address। IP address  হল ইন্টারনেটে একটি কম্পিউটারকে নির্দিষ্ট করে চিহ্নিত করার জন্য নির্দিষ্ট নাম বা সংখ্যা।

একটি উদাহরণ দিয়ে বিষয়টি ক্লিয়ার করতেছি।
দুইজন ব্যক্তি যখন মোবাইল ফোনের মাধ্যমে কথা বলে তখন একটি প্রক্রিয়া হয়, প্রথম ব্যক্তি যখন দ্বিতীয় ব্যক্তিকে কল করে তখন  প্রথম ব্যক্তির ফোন না্ম্বার থেকে  দ্বিতীয় ব্যক্তির ফোন নাম্বারে নেটওয়াকের মাধ্যমে একটি অনুরোধ সেন্ট হয় এবং দ্বিতীয় ব্যক্তি অনুরোধটি গ্রহণ করলে দুজনের মধ্যে কথোপকথন শুরু হয়। নেটওয়াক কিন্তু কোন মানুষকে চিনে না চিনে শুধু ফোন নাম্বার, যদি  ফোন নাম্বার না থাকত তবে নেটওয়াক কার কল কার কাছে পাঠাবে তা বুঝতনা ।
ঠিক একইভাবে আমাদের কম্পিউটারে একটি নাম্বার থাকে তার নাম internet protocol adderss সংক্ষেপে IP adderss বলা হয়।

IP adderss কি কাজে লাগে ?
একটি বিষয় চিন্তা করুন www.teypang.com লিখে Enter দেওয়ার সাথে সাথে আমাদের এই ওয়েব সাইট আপনার সামনে চলে আসে, এই প্রক্রিয়াটি কিভাবে হয় ? আমি বুঝিয়ে বলতেছি,
আমি আগেই বলেছি আপনার কম্পিউটারের একটি IP adderss আছে।
আর প্রত্যেক ওয়েবসাইটের একটি IP adderss আছে ।
আমাদের ওয়েব সাইটের কনন্টেন (ওয়েব সাইটের মূল উপাদান ) নির্দিষ্ট একটি কম্পিউটারে জমা আছে এই কম্পিউটারকে hosting server বলে, এই কম্পিউটারেরও (hosting server) একটি IP adderss আছে ।

আপনার কম্পিউটারের ওয়েব ব্রাউজারে www.teypang.com লিখে Enter  দেওয়ার সাথে সাথে আপনার কম্পিউটারের IP adderss থেকে www.teypang.com  ওয়েব সাইটের IP adderss একটি অনুরোদ চলে আসে, আর www.teypang.com এর IP adderss ঐ অনুরোদ কে hosting server এর IP adderss এর কাছে পাঠিয়ে দেয়, পরে  hosting server এর IP adderss ওয়েব সাইটের ফটো, গান, বিভিন্ন ফাইল ইত্যাদি আপনার কম্পিউটারের দেখানোর জন্য একটি অনুরোদ আপনার কম্পিউটারে পাঠায়, আর আপনার কম্পিউটার এই অনুরোদ পাওয়া সাথে সাথে আমাদের ওয়েব সাইটের ডাটা (ফটো, গান, বিভিন্ন ফাইল ইত্যাদি)  আপনার কম্পিউটারে দেখা যা্য়।
আসলে এই প্রক্রিয়াটি আরো জটিল আপনাদেরকে সহজ ভাবে বোঝানোর জন্য এই উদাহরন দেওয়া হয়েছে।

আসল কথাই ভুলে গেছি।
ip adderss হল ইউনিক, বিভিন্ন দেশের জন্য বিভিন্ন ip adderss ব্যবহার করা হয়, এক ব্যক্তির ip adderss এর সাথে অন্য ব্যক্তির ip adderss মিল থাকে না । অাপনি যতই ফেইসবুক আইডি বা জিমেইল আইডি চেইঞ্জ করেন না কেন ip adderss পরিবর্তন হবে না। তাই ইন্টারনেটে অপরাধ করলে অপরাধীকে ধরা পরতে হয়।
নিজের ip adderss জানার জন্য গুগলে ip adderss লিখে সার্চ করলে ip adderss জানতে পারবেন।

তবে ip adderss পরিবর্তন করা যায়, ip adderss পরিবর্তন করা ও অন্য দেশের ip adderss ব্যবহার করা নিয়ে পরে এক দিন আলোচনা করব।